(বিএনপি কমিউনিকেশন) —  আন্তর্জাতিক ‘মা’ দিবস উপলক্ষে বিএনপি চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া বাণী দিয়েছেন।

শনিবার, ১৩ মে পাঠানো এক বাণীতে বিএনপি চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া বলেন,

“আন্তর্জাতিক মা দিবস উপলক্ষে আমি বাংলাদেশসহ বিশ্বের সকল মা’কে জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। তাদের সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করি।

জন্মদাত্রী মা’কে ঘিরেই আবর্তিত হয় পরিবারের সকল কার্যক্রম, পরিবারে মা হচ্ছেন এক অনন্য বিস্ময়কর প্রতিষ্ঠান। মহিয়সী মা’য়ের তত্ত্বাবধানেই শিশুকাল থেকে ছেলে-মেয়েরা সুসন্তান হিসেবে গড়ে ওঠে। আবহমান কাল ধরেই এই অমোঘ ধারা চলে আসছে। নম্রতা, বিনয়, সৌজন্য, ধৈর্য্য ও সহিষ্ণুতা হচ্ছে সুমাতার চিরকালীন বৈশিষ্ট্য। সুমাতার সাহচার্য সন্তানের উৎকর্ষতা ও প্রকৃত মানব-সত্ত্বার জাগরন ঘটায়, সন্তানের আত্মাকে করে নির্মল, স্বচ্ছ ও পবিত্র। নিষ্ঠা সহকারে দায়িত্ব পালন ও গ্রহণ করতে মায়েরা থাকেন সন্তানদের নিকট অগ্রপথিক। সন্তানদের সুশৃঙ্খল, শিষ্ট ও সর্বক্ষেত্রে যোগ্য হয়ে গড়ে উঠার পিছনে থাকে একমাত্র মায়েদের অক্লান্ত অবদান। সুমাতার সাহচর্যে গড়ে ওঠা সন্তানই সমাজ ও রাষ্ট্রের সুনাগরিক হিসাবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হন। রাষ্ট্রের গণতান্তিক বিকাশ এবং অগ্রসর সমাজ বিনির্মাণের ক্ষেত্রে একমাত্র হাতিয়ারই হচ্ছে শিক্ষিত ও স্ব-শিক্ষিত মায়েদের ভূমিকা। এই বিষয়টি বিবেচনায় রেখেই আমরা ক্ষমতায় থাকার সময় নারী শিক্ষার ব্যাপক প্রসার ঘটিয়েছিলাম। আমাদের সময়ে স্কুল থেকে ছাত্রীরা যাতে ঝরে না পড়ে তার জন্য নানা উদ্যোগ গ্রহন করেছিলাম। আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি দায়িত্বশীল, শিক্ষায় আলোকিত মায়েদের সুসন্তানরাই দীর্ঘদিনের অচলায়তন ভেঙ্গে সামাজিক অগ্রগতি তরান্বিত করবে এবং জাতীয় উন্নয়নকে করবে বেগবান ।

আজকের দিনে আমার প্রত্যাশা সকল মা যেন তার সন্তানদের যোগ্য ও সুনাগরিক হিসাবে গড়ে তুলতে সক্ষম হন। বর্তমান দুঃসময়ে সামাজিক অবক্ষয়ে জনজীবনে অন্ধকার নেমে এসেছে। নারী-শিশুর ওপর নির্যাতনের হিড়িকে ভয়ানক নৈরাজ্যে সমাজে বিপজ্জনক পরিস্থিতি বিরাজমান। এমতাবস্থায় সন্তানকে নির্ভূল, সঠিক পথে পরিচালিত করতে পারে কেবলমাত্র সুমাতা। যাতে জাতির আগামী ভবিষ্যত উজ্জল থেকে উজ্জলতর হয়। আল্লাহ হাফেজ। বাংলাদেশ জিন্দাবাদ।”