(বিএনপি কমিউনিকেশন) —বর্তমান সরকারকে দেশের জনগণ বিদায় দেওয়ার প্রস্তুতি শুরু করেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী।

মঙ্গলবার, জুন ১৩, বিকেলে নগরীর বাকলিয়া এলাকায় এক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, মাঠে-ঘাটে, পথে-প্রান্তরে, টেক্সিতে, টেম্পুতে সব জায়গায় মানুষ সরকারের সমালোচনা করছে। তারা সরকারকে বিদায় জানাতে চায়।

আমীর খসরু বলেন, দেশের মানুষ এ সরকারকে বিদায় করে দেওয়ার জন্য প্রস্তুতি শুরু করেছে। আইন শৃঙ্খলা বাহিনী ও সরকারি চাকরিজীবীরাও প্রস্তুতি নিচ্ছে। কারণ তারা দেশের মানুষ কোন দিকে তা বুঝতে পেরেছে।

এসব কারণে সরকার অস্বস্তিতে রয়েছে দাবি করে তিনি বলেন, আমি আপনাদের আশ্বস্থ করতে চাই। সরকার এখন নার্ভাসনেসে ভুগছে। কারণ তারা জানে সময় ঘনিয়ে এসেছে।

‘আওয়ামী লীগ দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে নিয়ে কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য দিচ্ছে। এতে বুঝতে হবে সরকার তাদের ভয় পাচ্ছে। তারা যে প্রক্রিয়ায় ক্ষমতায় থাকতে চায় সেই প্রক্রিয়াও এখন কাজ করছে না।’

বিএনপির দেওয়া ভিশন ২০৩০ ঘোষণার পর থেকে সরকারের ঘুম হারাম হয়েছে গেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, সেখানে সব বিষয় তুলে ধরা হয়েছে। সাধারণ জনগণের জীবন মান উন্নয়নের কথা বলা হয়েছে। অথচ সরকার সাধারণ মানুষের জীবনকে দুর্বিসহ করে তুলেছে। চরম বৈষম্য তৈরি করেছে। বৈষম্য সমাধানে আমরা কাজ শুরু করেছি।

মানুষের প্রত্যক্ষ আয় কমে গেছে দাবি করে খসরু বলেন, সরকার মানুষের গণতান্ত্রিক, ভোটাধিকার, বাক স্বাধীনতাসহ সব অধিকার কেড়ে নিয়েছে। বিচার বিভাগের যে অবক্ষয় হয়েছে তা ফিরিয়ে আনতে হবে।

আগামী দিনে কোন কিছুই বিএনপিকে বাধাগ্রস্থ করতে পারবে না উল্লেখ করে তিনি বলেন, মানুষের অধিকার ফিরিয়ে আনতে নির্বাচনকালীন সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে বিএনপি।

দেশে আর কোন এক দলীয় নির্বাচন হতে দেওয়া হবে না জানিয়ে বিএনপির চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুর রহমান শামীম বলেন, এই সরকারকে দেশের মানুষ আর ক্ষমতায় দেখতে চায় না।

ভিশন ২০৩০ ঘোষণার পর থেকে বিএনপিকে নিয়ে নতুনভাবে ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে অভিযোগ করে নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর বলেন, সরকার মনে করেছিল বিএনপিকে বাইরে রেখে নির্বাচন করে ক্ষমতায় যাবে। কিন্তু বিএনপি যখন ভিশন ২০৩০ ঘোষণা করলো তখন নতুন ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে।