(বিএনপি কমিউনিকেশন) —  একটি অবাধ সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচনের ব্যবস্থা না করলে দেশের মানুষ আওয়ামী লীগকে পালাতেও দেবে না এমন হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

সোমবার, জুলাই ১৭, দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে ভাসানী মিলনায়তনে এক সেমিনারে তিনি এ হুঁশিয়ারি দেন। ‘বিএনপির ভিশন ২০৩০ –  নারী সমাজের উন্নয়ন ও অগ্রগতি’ শীর্ষক এ সেমিনারের আয়োজন করে জাতীয়তাবাদী মহিলা দল।

মির্জা ফখরুল বলেন, আওয়ামী সরকারের পালাবার একমাত্র সুযোগ সকল রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের ব্যবস্থা করা। অন্যথায় সত্যি সত্যিই দেশের মানুষ তাদের পালাতে দেবে না।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘বর্তমান সরকারের প্রবৃদ্ধি হচ্ছে শুধুমাত্র ধনী লোকদের হাজার হাজার টাকা লুট করা। অন্যদিকে গরিবরা গরিব থেকে গরিব হচ্ছে, থাকছে ফুটপাতে। তারা (আওয়ামী লীগ) দেশকে বাপের তালুকদারি বানিয়ে হাজার হাজার টাকা লুট করছে। আর সাধারণ মানুষ, হাততালি বাজাবে আহ বেশ বেশ, তা – হবে না।’

তিনি বলেন, ‘বর্তমান সরকার বিএনপির নির্বাচনে আসুক এবং দেশে অবাধ সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন হউক তা চায় না। তারা জানে ভোটের মাধ্যমে তারা ক্ষমতায় আসতে পারবে না।’

নির্বাচন কমিশন গঠনে আবারও সমালোচনা করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘প্রশ্নবিদ্ধ ব্যক্তির মাধ্যমে ইসি গঠন করা হয়েছে। তারপরও আমরা বলেছি, একটি অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচনের ব্যবস্থা করলে সমর্থন পাবেন। সম্প্রতি ইসি একাদশ জাতীয় নির্বাচনের রোডম্যাপ ঘোষণা করেছে। খুব ভালো কথা। কিন্তু নির্বাচন করতে হলে সকল রাজনৈতিক দলগুলোকে একই রাস্তায় নিয়ে আসতে হবে, সেই রাস্তা কোথায়?।’

ইসির উদ্দেশ্যে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘নির্বাচনী পরিবেশ তৈরি করুন। অন্যথায় নির্বাচনী রোডম্যাপ স্বার্থক হবে না।’

সংগঠনের সভাপতি আফরুজা আব্বাসের সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য দেন- মহিলা দলের নূরজাহান ইয়াসমীন, সুলতানা আহমেদ, হেলেন জেরিণ খান, নূরুন নাহার, শামছুন্নাহার ভূইয়া প্রমুখ।