(বিএনপি কমিউনিকেশনস)  —  রোববার, আগস্ট ১৩, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর গত কয়েকদিনের ভারী বর্ষণে তিস্তা, ধরলা, পূণর্ভবা, ব্রহ্মপুত্রসহ দেশের বেশ কয়েকটি নদী ফুলে ফেঁপে উঠে ভয়াবহ বন্যায় জনজীবন বিপর্যস্ত হওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন।

বিবৃতিতে মির্জা আলমগীর বলেন, ভয়াবহ বন্যায় বিস্তীর্ণ এলাকার বাড়ীঘর বিধ্বস্ত, ফসলী জমি ও ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতিতে উপদ্রুত মানুষ আহাজারী করছে।

পুরো বিবৃতিটি নিচে দেয়া হলো –

“ভারী বর্ষণে দেশের উত্তরাঞ্চলসহ বিভিন্ন এলাকায় ভয়াবহ বন্যায় বিস্তীর্ণ এলাকার বাড়ীঘর বিধ্বস্ত, ফসলী জমি ও ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতিতে উপদ্রুত মানুষ আহাজারী করছে। উজানের প্রবল পানির তোড়ে তিস্তা নদীর বাংলাদেশ অংশ এখন বিপজ্জনক রুপ ধারণ করেছে ।

বৃহত্তর রংপুর ও দিনাজপুর জেলা বন্যার পানিতে তলিয়ে যেতে শুরু করেছে। কিন্তু পরিতাপের বিষয় এই যে, বন্যাকবলিত এলাকায় দুর্গত মানুষের সাহায্যার্থে এখনও পর্যন্ত ত্রাণ তৎপরতায় সরকার নিস্ক্রিয় ভূমিকা পালন করছে। সরকারের উন্নয়ন শুণ্যগর্ভ মেকি বলেই কোথাও অবকাঠামোর ইতিবাচক কোন পরিবর্তন নেই। আর সেই কারণেই যে কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগে জনগণের ক্ষয়ক্ষতি হয় অপরিসীম।

দেশজুড়ে চলছে ভয়াবহ খাদ্য সংকট, এর ওপর সরকারী দলের খাদ্যপণ্য কেলেঙ্কারী তো রয়েছেই। সুতরাং যাদের রাজনীতির লক্ষ্য জনগণের কল্যাণ নয়-তাদের দ্বারা দুর্গত মানুষ উপেক্ষিতই হবে। আমি বন্যা কবলিত মানুষদের ক্ষয়ক্ষতি কাটিয়ে ওঠার জন্য বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি’র সকল পর্যায়ের নেতা-কর্মীসহ দেশের বিত্তবানদের দ্রুততার সাথে এগিয়ে আসার আহবান জানাচ্ছি।”