(বিএনপি কমিউনিকেশনস)   — সেপ্টেম্বর ৩, ২০১৭, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদো দল-বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের দশম কারামুক্তি দিবস। ২০০৭ সালের ৭ মার্চ তৎকালীন অনির্বাচিত শাষকগোষ্ঠী তাঁকে গ্রেপ্তার করে। ২০০৮ সালের এ দিনে তিনি জামিনে মুক্তি পান।

এরপর থেকে প্রতি বছরই দিবসটি যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করে আসছে বিএনপি। এবারো নানা কর্মসূচির মধ্যদিয়ে বিএনপি তারেক রহমানের কারামুক্তি দিবস পালন করছে।

কারামুক্তি দিবসে সারাদেশে মসজিদে দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে। এ ছাড়া অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলো বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করবে।

তারেক রহমান মুক্ত হয়ে বর্তমানে ব্রিটেনে উন্নত চিকিৎসা নিচ্ছেন। আগের চেয়ে অবস্থা ভালো হলেও এখনো সুস্থ হয়ে উঠতে পারেননি তিনি। তার সুস্থতা ও দেশে ফিরে এসে বিএনপির রাজনীতিতে হাল ধরার প্রত্যাশায় রয়েছে দলটির সব পর্যায়ের নেতাকর্মী।

তারেক রহমান বিএনপিকে শক্তিশালী করতে তৃণমূল পর্যায়ে প্রতিনিধি সম্মেলন করে ব্যাপক আলোচনায় আসেন। তিনি সরাসরি বিএনপির নেতৃত্বে আসেননি। প্রথমে দলের সমর্থক, পরে কর্মী হয়ে ধীরে ধীরে দলের নেতৃত্বে আসেন। ২০০৭ সালে যখন গ্রেপ্তার হন তখন তিনি ছিলেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব। ২০০৯ সালে দলের ৫ম কাউন্সিলে সর্ব সম্মতিক্রমে তাকে দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান মনোনীত করা হয়। পরে ষষ্ঠ কাউন্সিলে আবার তিনি একই পদে সর্ব সম্মতিক্রমে মনোনীত হন। পদাধিকার বলে তিনি দলের সর্বোচ্চ নীতি-নির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য।