(বিএনপি কমিউনিকেশনস)   — বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ১২, আরো দুটি মিথ্যা মামলায় বিএনপি চেয়ারপার্সন ও তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারির ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ১২, বিবৃতিতে বিএনপি মহাসচিব বলেন –  

“বিএনপি চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক ও মানসিকভাবে হেনস্তা করতে সকল শক্তি নিয়োগ করেছে বর্তমান সরকার। প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতে আদালতকে ব্যবহার করে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে লাগাতারভাবে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি করা হচ্ছে। একদিকে জনগণকে ভয়ভীতি প্রদর্শন, অন্যদিকে বিএনপি চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে পর্যুদস্ত করতে পারলেই দীর্ঘমেয়াদে ক্ষমতায় টিকে থাকার মনোবাঞ্ছা পূরণ হবে ভেবেই সরকার বেগম জিয়াকে হয়রানী করতে নানা কারসাজিতে মেতে উঠেছে। গণতন্ত্রকে চিরদিন বন্দী করে রাখার জন্যই দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারী করে দেশে অস্থিরতা, বিভেদ ও বিভাজনের পরিবেশ জিইয়ে রাখা হচ্ছে। সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায়ে সরকার হতাশ ও দিশেহারা হয়ে গেছে বলেই প্রধান বিচারপতিকে দেশ থেকে বিতাড়ণের কুপন্থা অবলম্বন করায় সরকারের বিরুদ্ধে জনগণের ক্ষুব্ধতা তীব্র আকার ধারণ করেছে। সেজন্য জনগণের দৃষ্টিকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে সরকার ধারাবাহিকভাবে মিথ্যা মামলায় গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি করে যাচ্ছে। এই আক্রোশমূলক গ্রেফতারী পরোয়ানা জারিতে দেশবাসী ক্ষুদ্ধ ও স্তম্ভিত। পৃথিবীর ইতিহাসে প্রতিহিংসার পরিণতি হয় অস্বাভাবিক। এটি দিয়ে প্রতিহিংসা চরিতার্থ করে রাজনৈতিক সমাধান হবে না, বরং দেশকে নিয়ে যাওয়া হবে চরম নৈরাজ্যের দিকে। আমি দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে পূনরায় আরো দুটি মিথ্যা মামলায় গ্রেফতারী পরোয়ানা জারির ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং অবিলম্বে তাঁর মিথ্যা মামলা ও গ্রেফতারী পরোয়ানা প্রত্যাহারের জোর দাবি করছি।

আমি গভীর উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষ্য করছি যে, আমার নামে কতিপয় অসাধু ব্যক্তি ভুয়া ফেসবুক আইডি খুলে বিভিন্ন মন্তব্য ও প্রচারণায় লিপ্ত রয়েছে। ইতোপুর্বেও এধরণের ঘটনা ঘটেছিল, যার সাথে আমার আদৌ কোন সংশ্লিষ্টতা নেই। আমি আমার নামে খোলা এধরণের ভুয়া ও মিথ্যা ফেসবুক আইডি সম্পর্কে সকলকে সজাগ ও সচেতন থাকার আহবান জানাচ্ছি এবং দ্রুত এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি করছি।”