(বিএনপি কমিউনিকেশন) —    বিএনপি চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে গ্রেফতারের আগে ও পরে মোট ৪৩৯০ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ১৫, দুপুরে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সংবাদকর্মীদের কাছে এ তথ্য তুলে ধরেন।

এসময় বিএনপির মহাসচিব গ্রেফতার হওয়া নেতাকর্মীদের বেশ কয়েকজনের নামও উল্লেখ করেছেন। যার মধ্যে আছেন গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আমানউল্লাহ আমান, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদুসহ বেশ কয়েকজনের নাম উল্লেখ করেন।

মির্জা আলমগীর আরও বলেন, দেড়শো বছরের পুরোনো, পরিত্যক্ত কারাগারে খালেদা জিয়াকে রাখা হয়েছে। যেখানে পার্ক, জাদুঘর, শপিং মল করার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছিল। এর সবই নীলনকশার অংশ। আগামী নির্বাচনে দেশনেত্রী বেগম জিয়া, বিএনপি যাতে অংশ নিতে না পারে সে জন্য এটা করা হচ্ছে।

বিএনপির মহাসচিব আরও বলেন, আমরা অশান্তি চাই না। কিন্তু কোনো স্পেস (সুযোগ) দেয়া হচ্ছে না। নো স্পেস। আমরা শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করছি। সেখানেও বাধা দেয়া হচ্ছে, আমাদের সিনিয়র নেতাদের গ্রেফতার করা হচ্ছে। আমাদের দাঁড়াতেও দিচ্ছে না।

তিনি আরও বলেন, খালেদা জিয়া উড়ে এসে জুড়ে বসেননি। তিনবারের নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী তিনি। দুই বার বিরোধী দলের নেতা ছিলেন। কখনো নির্বাচনে হারেননি। নয় বছর স্বৈরশাসনের বিরুদ্ধে লড়াই করে গেছেন। অথচ তার উপর এখনো অত্যাচার চালানো হচ্ছে।