(বিএনপি কমিউনিকেশন) — বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী  দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে রাজশাহী বিভাগীয় সমাবেশে জনতার ঢল নামে।

রোববার, এপ্রিল ১৫, পুলিশি বাধা, হামলা, গ্রেফতার উপেক্ষা করে জনসভায় যোগ দেয় বিএনপির নেতাকর্মীরা। রাজশাহী মহানগর ও জেলা, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নওগাঁ, বগুড়া, নাটোর, জয়পুরহাট, সিরাজগঞ্জ, পাবনা থেকে জনগণ দুপুরের আগেই মাঠ প্রাঙ্গণে আসতে থাকে। অনেকে আবার আগের দিন বিভিন্ন এলাকা থেকে এসেও রাজশাহী শহরে অবস্থান নেয়। দুপুর ২টার আগেই ভুবন মোহন পার্ক পূর্ণ হয়ে যায়। এক সময়  পুরো শহর পরিণত হয় জনসমুদ্রে। সমাবেশ স্থলে উপস্থিত হওয়া সকলেই ‘এক দফা এক দাবি, স্বৈরাচার তুই কবে যাবি?’ ‘এক দফা এক দাবি, হাসিনা তুই কবে যাবি?’ ‘শেখ হাসিনার সময় শেষ, খালেদা জিয়ার বাংলাদেশ।’ ‘খালেদা জিয়ার মুক্তি চাই, মুক্তি চাই, ‘খালেদা জিয়ার কিছু হলে জ্বলবে আগুন ঘরে ঘরে’, ‘আমার নেত্রী আমার মা বন্দি থাকতে দিবো না’ ইত্যাদি স্লোগান দিতে থাকে। এর আগে শহরের বিভিন্ন এলাকায় সমাবেশ উপলক্ষে মাইকিং করতে দেখা গেছে।

রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র ও কেন্দ্রীয় বিএনপির বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের সভাপতিত্বে এবং মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শফিকুল হক মিলনের সঞ্চালনায় আরো বক্তব্য রাখেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, বরকত উল্লাহ বুলু, ব্যারিস্টার আমিনুল হক, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু, জয়নুল আবদিন ফারুক,  হেলালুজ্জামান তালুকদার লালু, কর্র্নেল (অব.) এম এ লতিফ, যুগ্ম মহাসচিব হারুন অর রশিদ, সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, সহসাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ শাহীন শওকত খালেক, সহপ্রচার সম্পাদক আমিরুল ইসলাম খান আলিম, নির্বাহী কমিটির সদস্য নাদিম মোস্তফা, সেলিম রেজা হাবিব, অ্যাডভোকেট কাজী গোলাম হোসেন, গোলাম মোস্তফা, গাজী রফিকুল ইসলাম, ডা. সাদেক চৌধুরী, শামসুল আলম প্রামাণিক, বগুড়া জেলা বিএনপির সভাপতি ভিপি সাইফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক আবু সাঈদ চান, রাজশাহী জেলা বিএনপির সভাপতি তোফাজ্জেল হোসেন তপু, যুবদলের সিনিয়র সহসভাপতি মোরতাজুল করিম বাদরু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নূরুল ইসলাম নয়ন, সাংগঠনিক সম্পাদক মামুন হাসান, স্বেচ্ছাসেবক দলের সুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম ফিরোজ প্রমুখ।

এছাড়াও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান  আব্দুল আউয়াল মিন্টু, বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং কর্মকর্তা শামসুদ্দিন দিদার, ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক ইসহাক সরকার, রাজশাহী যুবদল মহানগর বিএনপির সভাপতি আব্দুল সালাম আজাদ সুইট, সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান রিটন, জেলা যুবদলের সভাপতি মোজাদ্দের জামানী সুমন, সাধারণ সম্পাদক শফিকুল আলম সমাপ্ত, ছাত্রদল রাজশাহী মহানগরের সভাপতি আসাদুজ্জামান জনি, সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রবি, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি রেজাউল করিম টুটুল, সাধারণ সম্পাদক শরিফুজ্জামান জনিসহ বিএনপি ও তার অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের লক্ষাধিক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।